Wednesday, January 27, 2016

alternative reality 1

alternative reality 1

the 'xfiles' new season opener episode was a mind blower for me, exceeding all expectations from the mainstream media, not having watched any television for many years now, i even had 'breaking bad' and 'sherlock holmes' postponed despite urging by good friends and not so good ex-girlfriends. over the past few years i have slowly disconnected from the mainstream matrix reality as i delved deep into the secret nature of the alternative reality that we all are manipulated by, yet incognizant of. so this piece of writing, or any writing for that matter need not be your run of the mill mundane platitudes to merely fill the bland real estate of some mediocre magazine  existing for the sole purpose of tyrannical capitalism where advertising is covert bribe to survive the onslaughts of a lawless reality imposed upon the mass people by a small class of privileged "elites" with guard dogs holding red stick-lights to curtail sovereignty of the citizens while they lord on in their dark windowed bulletproof vehicles flanked by red blue lights and horrendous sirens. this writing will tend to alternate between what we do and do not see, let there be an x-factor of mystery, controversy, expansion of inventory, and switching on of a faculty unheard of as yet, an unlabeled sense of our consciousness.

mulder actually looks more older than scully, but this show is deeper than their sex apeal at this point, it's a game changer for the alternative media community that is constantly pushing to crack into the mainstream to expose truths that will shatter the comfort zones of our denialist faction of humanity whom our beloved baul lalon has defined as the 'bazaar of the blind' -- a popular song sung by a great many blind artists of our day who know not what they sing of. xfiles is not exactly your science fiction fantasy, a product of a hyperactive mind exalted by the stimulation of some synthetic drug abuse in a penthouse of an exotic hotel paid for by a wall street federal reserve banker making a killing by libor fraud and fractional reserve banking hedged by ballooned up stock ratings of mix-value packages sold to bounty hunters collecting double bubbled mortgage money from the american middle class families. no, xfiles is based on deep research of the "ufo files" for the lack of a better word--cia has been calling it "conspiracy theory" ever since the american people had figured out jfk was murdered by his own cohorts in washington and cia because he was about to blow the biggest whistle in the history of america and the world--a job now left undone for us to finish in peace-meal format through these non-signicant writings here and there. allow me to be humbled by this auspicious opportunity to assist certain fellow travelers to open their widely shut eyes for the first time in their entire lives.

i know this because i have done the so called "deep research" over the past few years, that forced me to quit everything else in my life in fascination of this wonderland of alice buried literally under our feet, an inner earth, agartha and shambala among many other mysteries, that revealed itself through the massive documentation available at our fingertips via the ever shrinking and censoring internet -- our last remnant of hope to regain the lost freedom of humanity to a hidden species called the draco reptilians, their minions and masters, a strange experiment in the human dna, our consciousness, and experience. we're not much better off than the broiler chicken in their coops, getting fat each day, waiting to be consumed by a fate that escapes their fancy. similar is the destiny of humanity, lest we push ourselves to be slightly more intelligent than fowl, look around, and realize there are invisible forces at play that we must learn to counter or else.

in this lifetime, you might hear things you will not be able to believe or understand. you will ask for proof and evidence which despite being provided may not satisfy your skepticism. but you must realize that the absence of evidence is not evidence of absence. a factor often ignored by people when trying to understand an unknown or unfamiliar phenomenon, is that their own belief system and the method of perception plays a big role. it is imperative to understand that all of us have been groomed and indoctrinated by certain cultural methods and protocols that become our second nature and we take much for granted. however, when understanding a phenomenon outside of our usual perceptual bubble, our methods can fail. often times it requires us to reverse some of our erroneous learning, to unlearn them, before we can develop the correct method which will remedy our blindness outside our perceptual bubble. this is the great eye opening.

what might be the purpose of such an endeavor? let me answer this question with a breaking news. just this week, 22 january 2016, barack obama put a bill in motion declaring a new kind of international martial law which gives the us president unlimited military power to go to war against any country for practically any reason. this is an omen for setting of the final stages of a long multidimensional battle against humanity perpetrated by a hidden (or not so hidden by those who have opened their eyes) enemy referred to as the RKM or rothschilds khazarian mafia. you can read their brief history here: http://geopolitics.co/2015/03/11/hidden-history-of-the-incredibly-evil-khazarian-mafia/ and watch a short video of the declaration of the martial law here: https://youtu.be/4zNTX8LaV_k.

the repercussions of this declaration, if put to use and chances are it has been enacted with very specific and immediate intentions of doing so, can be devastating for humanity if we're not prepared to thwart such a plan. the point here is not to promote doom & gloom but a knowing preparedness, lest we get caught with our trousers around our ankles. there's a massively sinister global agenda reaching its final stages on planet earth just as we speak -- something that our majority has no inkling for. this agenda involves primarily three unknown factors: a secret shadow govt of the world, inner earth civilizations, and off-world breakaway civilizations working in cahoots with extraterrestrial species to further enslave the people of this planet which will no longer be a covert infiltration but perhaps an overt domination and control nazi gestapo style.

in case this never comes to pass and people laugh at our faces in the future, that will be great, because the other option, a draconian takeover of humanity by the khazarian mafia will be so sinister and debilitating for humanity that our present tyrannical blues will then appear as the golden happy days of yore in comparison. so let's keep our heads up and eyes out on alert. those with psychic abilities will predict often enough that great energetic changes are a-coming to planet earth and surroundings. the present era is often referred to as the 'end times' or 'end of times' and such a period of colossal changes has been foretold throughout the various stages of human history by practically all different cultures. our job is to keep our egos in check and increase positive vibration around us by practicing non-judgment and universal love for all beings.

Sunday, January 17, 2016

corey goode message (image)

stories of dhaka 7 -- time dilation (in bengali)

ঢাকা শহরের কেচ্ছা ৭ -- টাইম ডাইলেশন



তালুকদাররা আসলে বুঝতেই পারে না আমি কোন কথা কেন বলি। একটা কালচারাল গ্যাপ কাজ করে যেটা ধরতে আমার অনেক সময় লাগলো কারণ মানুষ যে এত গবেট হতে পারে, এটা তো অ্যাস্যুম করা সম্ভব না। বেসিক্যালি, বাংলাদেশের প্রত্যেকটা মানুষের চিন্তা ভাবনা খুবই টুইস্টেড। এই যেমন ধরেন, মসজিদ থেকে মাইকগুলা যে খুলে ফেলতে হবে, এই কনসেপ্টটাই কারও মাথায় ঢোকে না। ওরা এটাকে একটা নেগেটিভ আইডিয়া মনে করে। এরকম আমার শতশত ব্রিলিয়ান্ট সাজেশনকে ওরা ভাবে এগুলা এক ধরণের পাগলামি। এগুলা যে আসলে খুব রিয়াল ইস্যুজ যেগুলা মানুষের মাথায় ঢুকে আস্তে আস্তে একটা একটা করে ইম্প্রুভ করতে হবে, এই কনসেপ্টটাই কারও মাথায় ঢোকে না। ইম্প্রুভের কি আছে? সব কিছু তো পারফেক্টলি চলছে। রিয়ালি?

এক গাট্টি টাকা নিয়ে ব্যাংকে দিয়ে আসলাম লম্বা লাইন ঠেঙ্গায়ে। এই ব্যাংক রামপুরার মত একটা গেটো জনবহুল এরিয়াতে হওয়া সত্ত্বেও, এদের সারাজীবনের জন্য একজন টেলার। কাস্টোমারদের দুর্দশা নিয়ে কারও কোন মাথাব্যথা নাই, এমনকি কাস্টোমাররা নিজেরাও এটা বোঝে না। আমার বিলের ভ্যাট যা আসছে সেটাই আসল বিলের চেয়ে বেশি। টাকা চুরির বহরটা এখানে চিন্তাই করা যায় না। অথচ এটা নিয়ে টুঁ শব্দ করার মত বুদ্ধি বিদ্যা এদেশে কারও নাই। সেলফি তুলতে বলেন, আছি। আস্তিক নাস্তিক গবেষণা, আছি। সামথিং দ্যাট অ্যাকচুয়ালি ম্যাটারস, ব্যাটা ছাগল কুনহানকার।

সেদিন তালুকদারকে প্রচণ্ড ক্ষ্যাপায়ে দিলাম। বললাম যে তোমার ভুল আছে। ওরে বাপরে। মহাভারত সম্পূর্ণ অশুদ্ধ হওয়া বাকি। ভদ্রভাবে ঘুরায়ে ফিরায়ে অ্যামেরিকান বলে গালি দেয়া থেকে শুরু কোন কিছু বাকি রাখল না। সব কিছু ও মানবে, কিন্ত ওর কোন জায়গায় ভুল থাকলেও থাকতে পারে, এটা মানবে না। আসলে ওর থেকে বেশি বড় ভুল হইসে আমার। কিন্তু আমি সেটা জেনেও ইচ্ছা করে ওকে বলসি যে ওর ভুল হইসে, শুধু দেখার জন্য যে ওর রিয়াকশনটা কি হয় -- প্রাইসলেস! বাঙালি কোনদিন কোন ভুল করেনি, করবেও না।

আমার নিজের সবচেয়ে বড় দুর্বলতা হল যে প্রত্যেকটা বাঙ্গালিকে আমার গবেট আর উন্মাদ মনে হয়। এই যেমন ধরেন, নগর চণ্ডালী নামে ফেসবুক গ্রুপটা -- অদ্ভুত এক সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষভরা গ্রুপ। দেখলে মনে র মোসাদের পেইড ট্রোলরা এই গ্রুপ চালায় অ্যাজ এ সাইঅপ্স, মানুষের মধ্যে হিংসা বিদ্বেষ বাড়ানোর জন্য। প্রত্যেকটা লোক এখানে ব্রেইনডেড আর ক্লুলেস। ওখানে কয়দিন আগে আমার এই ঢাকা শহরের কেচ্ছা একটা শেয়ার করলাম। কয়েকজন পড়সে, কিন্তু তেমন কোন রিয়াকশন নাই। হয়ত ওরা ভাবসে এই নতুন পাগল কইত্থে আইল?

তো, টাইম ডাইলেশন, এই টাইটেলটা দিলাম যে যদি বাই চ্যান্স কোন বুদ্ধিমান ব্যক্তির চোখে পড়ে, সে নিশ্চয়ই ভাববে ব্যাপারটা কি? দেখি তো। গত কয়েক বছর ধরে আমি একটা জিনিষই চেষ্টা করে যাচ্ছি -- কিভাবে বাঙালির কান ধরে টেনে মাথাটাকে অন্ধকার কুশিক্ষাচ্ছন্ন মূর্খতা আর গবেটামি থেকে বের করে আলোতে আনা যায়। পাঁচ বছর পরে, এখন মনে হয়, ভুল আমারই। এটা কোনদিন হবে না। এ এক অসম্ভব কাজ। মিশন ইম্পসিবল। তারপরও করি। অভ্যাস হয়ে গেছে। যা ইচ্ছা তাই লিখে আনন্দ পাই। যে যা ভাবে ভাবুক। আমি আমার মনের সুকথা কুকথা সমস্ত লিখে খালাস হয়ে যাই। এর মধ্যে একটা আরাম আছে। কেউ তো পড়ে না। কারও কিছু যায় আসে না।


সেদিন দেবস্মিতাকে বললাম, তোমরা কোলকাতার লোকেরা বড্ড ভারবোজ। অনেক ইন্টেলেকচুয়াল প্যাচাল পাড়ো, যেটা ঢাকার পোলাপানের চেয়ে অনেক বেশি ইন্টেলিজেন্ট, কিন্তু তোমরা মনে হয় কথার প্যাঁচে হারায়ে যাও। ঢাকার পোলাপান শুধু স্ট্রীট স্মার্ট। এদের কথায় খুব ধার, আর অনেক ভাবস, বিশেষ করে যাদের বাপের কোমড় শক্ত। কিন্তু এদের মাথায় কিছু নাই। অ্যাট বেস্ট এরা কিছু ফিলসফি আর লিটারেচার নিয়ে দুই চার পাতা যা পড়সে, তাই ভাঙ্গায়ে খাওয়ার চেষ্টা করে। এখানে মূল উদ্দেশ্য হল নিজেকে স্মার্ট হিসাবে প্রেজেন্ট করতে পারা। ইমেজ ইস্যু। রিয়াল থিঙ্ক করাটা কি, এটা আমরা জানিই না। হুমায়ুন আহমেদ হল আমাদের ইন্টেলেকচুয়াল জিনাথ (zenith), মানে শিখর।

আমাদের এই বুদ্ধিমত্তার কাঙ্গালিপনার পিছনের আদি কারণ ধরা যায় ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির শোষণ। ওরা যে আমাদের ঝাঁঝরা করে দিয়ে গেল, এর পিছনে মূল কারণ ছিল আমাদের নির্বুদ্ধিতা। আমরা আরামপ্রিয় বোকা জনগোষ্ঠী, এতে তালুকদার যতই ক্ষেপুক, ইহাই সত্য। ব্রিটিশ নেভি ছিল সেই আমলে একটা ভয়ংকর ব্যাপার। আমি কখনও বুঝতাম না যে নেভিকে এত ভয় পাওয়ার কি আছে? ওরা তো সমুদ্রে থাকে। ওখান থেকে কতটাই বা আঘাত করা যায় একটা দেশকে? এখন ঐ আর্ট অভ ওয়ার ফোয়ার পড়ে না বুঝি যে যুদ্ধ মানেই হল সাইঅপ্স। ইটস এ মাইন্ড গেম। আর বুদ্ধিতে আমরা একটু কমই। এ ব্যাপারে কোন ভুল নাই।

ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি বিবেকের তাড়নায় ভারত ছেড়ে যায়নি কিন্তু, এটা কি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। আমার জানামতে পারেননি। ওরা আরও ভাল স্ট্র্যাটেজি পেয়ে গেছে। সেই স্ট্র্যাটেজির নাম হলঃ ওয়ার্ল্ড ব্যাংক, আইএমেফ, সিএফার, কমিটি অভ ৩০০, বিআইএস, ট্রাইল্যাটারাল কমিশন, ন্যাটো, ইউএন, বিল্ডারবারগ, ইত্যাদি। ইন্ডিয়াকে ওরা ব্যবহার করে ওদের সাউথ এশিয়ান ইম্পিরিয়াল এজেন্ট হিসাবে। র হল ওদের শোষণের প্রধান হাতিয়ার। ভারতকে দিয়েই ওরা ভারতের আশেপাশের দেশগুলাকে চুষে খায়। আর ভারতকে যে ছেড়ে দেয়, তাও না। ভারতের সরকার ভারত চালায় না। ওদের মালিক বিদেশী। এটা আপনারা এখনও কেউ বোঝেন না বলে এটা নিয়ে কেউ কোন কথাও বলেন না।

আপনারা ব্যস্ত থাকেন মসজিদ মন্দির দাঙ্গা হাঙ্গামা নিয়ে। এগুলা যে সাজানো নাটক, কিছুতেই বুঝতে পারেন না। ফলস ফ্ল্যাগ আর সাইঅপ্সের কনসেপ্টগুলা কিছুতেই আপনাদের মাথায় ঢোকে না। আর যখন ঢোকে, তখন আপনারা আমাদেরকেই উলটা বলা শুরু করেন যে আমরা সাইঅপ্স বুঝিনা। আমরাই যে আপনাদেরকে ব্যাপারটা শিখালাম, সেটা দ্রুত ভুলে গিয়ে আজাইরা মাস্তানি শুরু করেন। ভাবেন যে রাতারাতি খুব পণ্ডিত হয়ে গেলেন। এখন আমরা তো কোন ছার। এটাই আমাদের বাঙালি স্টাইল। আমরা একটি হাস্যকর জাতি বটে।


টাইম ডাইলেশন বুঝতে হলে আপনারা র‍্যান্ডি ক্রেমার নামে একজন ইউএস মেরিনের ডিস্ক্লোজার ভিডিও দেখতে পারেন। ইউস্যাপ (usap -- unacknowledged special access program) নামে অ্যামেরিকায় কিছু ব্ল্যাক প্রজেক্ট আছে। ব্ল্যাক প্রজেক্ট অর্থ হল যে অ্যামেরিকার মেইন্সট্রিম গভর্নমেন্ট এগুলা সম্পর্কে কিছুই জানে না। এগুলা কন্ট্রোল করে শ্যাডো গভর্নমেন্ট। আমাদের ট্যাক্সের ট্রিলিয়ন্স অভ ডলারস এই সব প্রজেক্টে চলে যায় বিধায় আমরা দিন রাত টাকার জন্য ত্রাহি ত্রাহি করতে থাকি। আমাদের টাকা ওরা কিভাবে গিলে ফেলে এ ব্যাপারে কোন আইডিয়া আছে? কিছু করা যায়?

কালকে র‍্যান্ডি ক্রেমারের নামে গুগলে ভিডিও সার্চ দিয়ে দেখলাম যে কিছুই পাওয়া যায় না। গুগল এগুলা সেন্সর করার চেষ্টা করে। চর্চা না থাকলে গুগল দিয়ে কোন ইম্পরট্যান্ট তথ্য বের করা সম্ভব না। এর কারণ এগুলা দিয়ে ওরা মানুষকে মাইন্ড কন্ট্রোল করে। যে কারণে আমাদের বেশীর ভাগ বাঙ্গালিরই কোন ধারণা নাই যে আমরা কি পরিমাণ অন্ধকার জগতে বসবাস করি। চ্যান্সেস আর যে আপনারা সার্চ দিলেও কিছুই খুঁজে পাবেন না। আবার খুঁজে পেলেও এত লম্বা লম্বা ইংরেজি ভিডিও গিলতে পারবেন না। এগুলাই তো আমাদের সমস্যা। এগুলা ওভারকাম করেন। আর কত অন্ধকারে থাকবেন?

র‍্যান্ডি ২০ বছরের বেশি কাজ করেছে একজন ইউএস মেরিন হিসাবে। ওর পোস্টিং ছিল মঙ্গল গ্রহে। আমি ঠাট্টা করছি না, বা গাঁজাও খাইনি। ব্যাপারটা একটা সাধারণ সত্য। ২০ বছর কাজ করার পরে, ওকে এজ রিগ্রেস করে আবার পৃথিবীতে পাঠানো হয়। এটা ওদের একটা স্ট্যান্ডার্ড প্র্যাকটিস। এজ রিগ্রেস মানে হল বয়স কমানো। যে টেকনোলজি দিয়ে এই কাজটা করা হয় সেটাকেই বলে টাইম ডাইলেশন। র‍্যান্ডি হল ল্যাবে তৈরি করা জেনেটিকালি অগমেন্টেড হিউম্যান যার ডিএনএ কপিরাইট ইউএস গভর্নমেন্টের। যদি প্রথমবারের মতন আপনারা এইসব কথা শুনে থাকেন, তাহলে ধাতস্থ হতে সময় নিন। আস্তে আস্তে মাথায় ঢোকান, যে আমি এগুলা কি বলছি। আপনার রিয়্যালিটি কোথায়, আর আমি কি বলছি? দুইটার মধ্যে তো আকাশ পাতাল তফাৎ। জ্বি, গত পাঁচ সাত বছর ধরে এই বিষয়টাই আপনাদের মাথায় ঢোকানোর চেষ্টা করে যাচ্ছি কিন্তু কিছুতেই পারা যাচ্ছে না। আপনারা ঐ আস্তিক নাস্তিক ইত্যাদি ছাড়া কিছুই বোঝেন না।

Sunday, January 10, 2016

stories of dhaka 6 (in bengali)

ঢাকা শহরের কেচ্ছা ৬


সত্যি বলতে, আমার ঢাকা শহরের কেচ্ছা আর ড্রেকোর কেচ্ছা সব মিলে মিশে গুবলেট হয়ে গেছে, কিন্তু একদিক দিয়ে এটাই ঠিক আছে। এর কারণ, আমাদের খুব পরিষ্কার একটা ম্যাসেজ আছে যেটা এখনও ঠিকমত কাউকে বুঝাতে পারিনি। এই ম্যাসেজটা যখন মানুষের মাথায় ঢুকে যাবে, যখন সবার টনক নড়ে উঠবে, তখন মোটামুটি আমাদের কাজ শেষ। ঐ সময়ে আমাদের দায়িত্বটা অন্যদিকে মোড় নিবে। তো গত কয়েকদিন ধরে টের পাচ্ছি যে তালুকদার আর আমার আশেপাশের অনেকেই এক ধরণের অস্থিরতার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। যেমন রাজীব সামান্য ছুতায় আমাকে ফেসবুক থেকে ডিলিট করে দিল। ওর বক্তব্য হচ্ছে ওকে সামনাসামনি আমি যা বলার বলতে পারি, কিন্তু ওকে নিয়ে আমার ব্লগে বা ফেসবুকে যেন কিছু না লিখি। ফেয়ার ইনাফ? নট ফর মি। হ্যাঁ, এটা সত্যি যে আমার লেখায় আমি আমার পছন্দের কিছু মানুষকে পচাই বা পচাইছি, কিন্তু তার পিছনের কারণটা খুব গুরুত্বপূর্ণ বলে এটা আমার করতে হইছে। তবে এর মধ্যে কিন্তু আমি রাজীবকে ইচ্ছা করেই ঢুকাইনি কারণ ও হ্যান্ডল করতে পারবে না আমি জানি। কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হল না। ও ঠিকই বাঁশটা দিল আমাকে। কাজেই এখন আমি ফ্রীলি লিখতে পারি ওকে নিয়ে যা খুশি, কিন্তু এটা আমি আমার মনের খুশি মিটানোর জন্য করবো না। ঠিক আগের মতই এটাও হবে শিক্ষামূলক। আমি ধরে নিচ্ছি রাজীব আমার এই লেখা পড়বে, এবং এটা বুঝেই আমি ওকে নিয়ে কিছু কথা বলবো এটা আশা করে যে এগুলা জেনে ওর কিছু ইমোশনাল ব্যাগেজ কমবে।

আমার চোখে রাজীব খুব লাইকাবল একটা ছেলে এই কারণে যে আমি ওর বয়সে হুবহু ওর মতই ওয়েস্টার্ন কালচার আর মিউজিক দিয়ে ব্রেইনওয়াশড ছিলাম। ওর আর আমার "ক্ষ্যাতের" সংজ্ঞা বেশ কাছাকাছি। ওর ইন্টেলিজেন্স আমার কাছাকাছি বা আমার থেকে কিছুটা বেশি। ওর গান গাওয়া বা গিটার বাজানোকে আমি অ্যাডমায়ার করি। কিন্তু ওর রুবেল ব্যাশিং অ্যাটিচুডটা আমার ভাল্লাগে না, কিন্তু এটা নিয়ে ওকে কনফ্রন্ট করিনি কারণ রুবেলের কিছু ইস্যু আছে যেটা হীল করতে সময় লাগবে। মজার ব্যাপার যে এরা দুজনেই হাইলি ট্যালেন্টেড, অ্যাবাভ এভারেজ মিউজিশিয়ান, কিন্তু একজনের সাথে আরেকজনের বনে না। একটা জেলাসি ফ্যাক্টর ঢুকে পড়ে যেটা খুবই অ্যামিউজিং টু ওয়াচ!

ইদানিং যেটা হইছে যে যারা আমার কাছে আসে, তারা বেশীর ভাগ আমার ড্রেকো আর ইটি রিলেটেড কেচ্ছা শুনতেই আসে। কিন্তু রাজীব এই দলে পড়ে না। ও উলটা। ওর ঐ মেট্রিক্সের লোকদের মত "কন্সপিরেসি থিওরি" অ্যালারজি আছে। এটা যে সিয়াইএর একটা পুরানো ট্রিক সেটা ওর জানার কথা না। সিয়াইএ যখন কেনেডিকে মেরে ফেলে, তখনই একদল লোক এটা ধরে ফেলে বিভিন্ন জায়গায় লেখালেখি শুরু করসিল। তখন ওদের মুখ বন্ধ করার জন্য সিয়াইএ এই টার্মটা আবিষ্কার করে। এই ধরণের টার্ম আবিষ্কারের পিছনে কিন্তু ওদের ম্যাসিভ টাভিস্টক ইন্সটিটিউটের গবেষণা থাকে। ওরা মানুষের সাইকোলজি স্টাডি করে যাতে বের করতে পারে যে ম্যাস সাইকোলজি কিভাবে ম্যানিপুলেট করা যায়। রাজীব এবং আপনাদের প্রায় সবাই কিন্তু এইখানে ধরা খাওয়া। আপনাদের অনেকেরই কোন ধারনা নাই যে আপনাদের চিন্তাভাবনা কতখানি ম্যানিপুলেটেড এবং কন্ট্রোলড। আপনারা সবাই নিজেকে মুক্ত চিন্তার মানুষ মনে করেন, কিন্তু আসলে ব্যাপারটা ঠিক উলটা। এই ব্যাপারটা বুঝতে হলে আপনাদের প্রচুর পড়াশুনা করতে হবে। এইটা আমাদের ম্যাসেজের একটা খুব গুরুত্বপূর্ণ জায়গা যেটা আপনারা এখনও বুঝে উঠতে পারেননি। এখানে আপনাদের অনেক কাজ বাকি আছে।

তো রাজীব হল আমার মধ্যবিত্ত স্মার্ট ঢাকা শহরের ইয়াং জেনারেশনের সিম্বল বা মেটাফর। ওর চিন্তাভাবনা, ধ্যানধারনা দেশের একটা মোটামুটি বড় ডেমোগ্রাফিকে কে রিপ্রেজেন্ট করে। ওর কাছে যেহেতু মনে হয় যে রেপ্টিলিয়ান বা ইটি বলে কিছু নাই, এর ইমপ্লিকেশন হল আমি একটা গালিবল গবেট। যতক্ষণ আমি ড্রেকো নিয়ে কিছু না বলবো, অথবা ওর নাম আমার কোন লেখায় মেনশন না করবো, ততক্ষন ও আমাকে অ্যাক্সেপ্ট করবে অ্যাজ এ ফ্রেন্ড, আদারওয়াইজ রিজেক্টেড। এরকম ফাউল ফ্রেন্ডশিপ কি আমার খুব দরকার? আমি কি খুব ডেস্পারেট? এগজ্যাক্টলি একই কারণে কিন্তু আমি আমার সমস্ত পুরানো ক্লাসমেট আর তথাকথিত বন্ধুদের হারাইছি। এটা লাইট ওয়ার্কিং করার একটা অতি পরিচিত হ্যাজারড। মেট্রিক্স থেকে কেউ বের হয়ে আসতে চায় না। সবাই তাদের পুরাণ ধ্যান ধারণা আঁকড়ে ধরে থাকতে চায়। সবাই শুধু থোড় বড়ি খাঁড়া শুনতে চায়। নতুন কিছু শুনলেই বলে, ওহ নো, এগুলা তো কন্সপিরেসি থিওরি, হাহাহা!


আমরা কোন ড্রেকো রেপ্টিলিয়ান বা ইটিকে চোখে দেখি না, কারণ ওরা আমাদের চোখে ধরা দেয় না। এটা তখনই সম্ভব যখন ওরা আমাদের চেয়ে বেশি ইন্টেলিজেন্ট। কিন্তু আমরা তো এখানেই ধরা কারণ সবাই জানি যে আমরা আশরাফুল মাখলুকাত -- সৃষ্টির সেরা জীব, কাজেই আমাদের চেয়ে ইনটেলিজেন্ট প্রাণী কোত্থেকে আসবে? বললেই হল? কোরানে যা লেখা নাই, তা কিভাবে বাস্তবে থাকা সম্ভব? রাজীবের যুক্তিটা এরকমই। কারণ মুখে তেমন কিছু না বললেও, মনে প্রানে ও দেশের আর সব মধ্যবিত্তের মতই কট্টর মুসলিম, প্র্যাক্টিসের দিক দিয়ে না (ওটা বেশি ঝামেলা), বিশ্বাসের দিক দিয়ে। তবে শুধু মুসলমানদের পচানো ঠিক হবে না কারণ আমার বন্ধু অভিজিৎ তো হিন্দু, কিন্তু ঐ একই অবস্থা। ইটি বলে কিছু আছে, এটা ও কিছুতেই হজম করতে পারে না। অথচ এদিকে অল্টারনেটিভ মিডিয়ায় ইটি নিয়ে হুলুস্থুল হয়ে যাচ্ছে। এগুলা ওরা কিভাবে ইগ্নোর করে, এটা আমাদের বিশ্বজগতের এক মহাবিস্ময়ই বটে!

ঐ যে মুসলমানদেরকে পচানোর ব্যাপারটা বললাম, ওটাকে অত সিরিয়াসলি নিবেন না, আপনি তো আর টেররিস্ট না! হাল্কাভাবে নেন। সেই ব্যাক্তিই উন্নত যে নিজেকে নিয়ে হাসতে পারে। অনেকে মনে করে পৃথিবী থেকে সমস্ত ধর্ম আরও ৪০০ বছর আগে উঠে যাওয়া উচিৎ ছিল। এর কারণ, এই ধর্মগুলা একটা ব্যবসা, একটা কন্ট্রোল মেকানিজম। আত্মিক উন্নতির সাথে ধর্মের কোন সম্পর্ক নাই। যদি থাকতো, তাহলে বাংলাদেশটা হত পৃথিবীর এক নম্বর সত্যবাদী দেশ বা জাতি। কিন্তু আসলে তো আমরা পৃথিবীর এক নম্বর মিত্থুক জাতি। একটা সামান্য কমিটমেন্ট আমরা রাখতে পারিনা। গুলশান থেকে একজনকে ফোন দিয়ে বলি আমি মতিঝিল। এক কিলোমিটার রাস্তা বানাতে গিয়ে আম্মিলিক চুরি করে কয়েক হাজার কোটি টাকা। এই আম্মিলিক কে? কে আর? আমার আর আপনার আত্মীয় স্বজন ভাই বোন। এই জন্যই তো আমরা দেখেও দেখিনা, শুনেও শুনিনা। ব্যাংকে কিছু মোটা টাকা জমা থাকলে কিছুতেই কিছু যায় আসে না, এটা আমাদের মনের পিছনের গোপন কুঠরিতে লুকানো থাকে। তাই কোন কিছুতেই আমরা খুব বেশি বিচলিত হইনা যতক্ষণ পর্যন্ত ঐ ব্যাংক ব্যালেন্সে টান না পড়ে। টাকা হল আমাদের আসল ধর্ম। টাকা হল আমাদের আল্লাহ। যার টাকা আছে, তার ঈমান আছে। তার বন্ধুর অভাব হয় না।

আমাদের ম্যাসেজের একটা বড় অংশ হল আপনাদেরকে বুঝানো যে পৃথিবীটা কন্ট্রোল করে একদল নকল জুইশ পিপল যারা আসলে রাশিয়ার খাজারিয়া এলাকার স্থানীয়, কিন্তু এরা সারা পৃথিবীতে ছড়ায়ে গেসে। এরা দাবী করে যে এরা অরিজিনালি ইজরায়েলের সেমিটিক মানুষজন, কিন্তু জেনেটিক পরীক্ষায় ধরা পড়সে যে এটা সত্যি না। বরং পালেস্টাইনের আরবরাই সেমিটিক পিপল যারা ইব্রাহিমের বংশধর। সউদি আরবের সাউদ পরিবার, যারা ওখানকার রাজবংশ সেজে বসে আছে, এরাও আসলে ঐ খাজারিয়ান জু দের উত্তরসূরি। এখানেও একটা বিরাট মিথ্যা প্রতিষ্ঠিত হয়ে আছে, কারণ এরা আসলে ওয়াহাবিজম নামে অন্য একটা ধর্মকে ইসলাম বলে চালাচ্ছে। আমাদের দেশের মসজিদ মাদ্রাসায় যে সউদি সাহায্য আসে, ওটার পিছনে আসল কারণ হল আমাদের দেশে ইসলামের বদলে ওয়াহাবিজম প্রতিষ্ঠা করা, যেটা অলরেডি হয়ে বসে আছে। আপনারা যেটাকে ইসলাম হিসাবে মানেন, ওটা আসলে ওয়াহাবিজম। আসল ইসলাম সম্পর্কে জানতে হলে আপনাদের অনেক গভীর গবেষণা করতে হবে যেটার বিষয়ে সঠিক বইপত্র পাওয়া দুস্কর হবে, আর যদি আপনারা কেউ কেউ সত্যটা আসলেই পেয়ে যান, ওটা পাবলিককে বুঝাতে গেলে আমাদের মতই বাঁশ খাবেন। সবাই বলবে, আরে পুরাণ পাগলে ভাত পায় না...!


এটা জানা আপনাদের জন্য অপরিহার্য যে আমাদের দেশে যারা মুখ মাথা সব ঢেকে শুধু চোখ বের করে ঘোরে, এরা আসলে দুই নম্বর। এরা কেউ কেউ নিজেদের অতি বেশি সুন্দরি মনে করে, আর কেউ কেউ বদ ধান্দা নিয়ে বের হয় ঐ মুখোশ পরে, যাতে মানুষ ওদের চিনতে না পারে। এই প্র্যাকটিসটা সম্পূর্ণ ইসলাম বিরোধী। আসল মুসলিম হবে এত হাম্বল, এত বিনয়ী যে দেখে বোঝা যাবে না এই লোক মুসলমান না হিন্দু, নাকি অন্য কিছু। নিজেকে ব্র্যান্ডিং করার জন্য টুপি দাঁড়ি পাঞ্জাবী এইসব ভাক্কা করতে হবে না। গিরার উপরে তোলা বিরক্তিকর খাটো পাজামা পরে জনগণকে বুঝাতে হবে না যে এই দেখেন, আমি কত্ত বড় হাম্বল মহাপুরুষ! কপালে যাতে কাল দাগ না পড়ে, সেজন্য সেজদার জায়গাটায় নরম কিছু দিয়ে নামাজ পড়েন। ঐ দাগটা কাকে দেখাতে চান? আল্লাকে? আল্লা কি জানে না যে আপনি ব্যবসাতে কি কি দুই নম্বরি করেন? আল্লা কি আপনার মতই ইগোটিস্টিকাল উজবুক? গেট রিয়াল পিপল!

সত্যি বলতে আমি কি যেন একটা বলতে চাচ্ছি সেটা বলাই হচ্ছে না। হাবিজাবি এটা সেটা বলে যাচ্ছি, কিন্তু বারবার মনে হচ্ছে আসল ম্যাসেজটা এখনও দেয়া হয়নি। আমি বেশ কিছুদিন ধরে তালুকদারকে ওয়াচ করতেসি। বোঝার চেষ্টা করতেছি যে ও কি আসলে অ্যাক্টিভেটেড নাকি ঠিক রাজীবের মতই ওও আমার চোখে ধুলা দিচ্ছে? ওর ফেসবুক স্ট্যাটাসে আমি খুচরা পাকনামি ছাড়া তেমন কিছু দেখিনা। সিরাজ সিকদারকে নিয়ে একটা লেখা দিল কয়দিন আগে, কিন্তু এগুলাও ঐ আম্মিলিক বিরোধী কিছু মেট্রিক্সের ফাঁপর বৈকি, এর বেশি কিছু না। এইসব পুরানো কাসুন্দি ঘাঁটা কিছুটা প্রয়োজন আছে এই কারণে যে র-আম্মিলিকের একটা বড় অ্যাজেন্ডা হল ইতিহাস থেকে জিয়াউর রহমানের নামটা মুছে ফেলে সব জায়গাতে মুজিবের নাম ঢুকায়ে মিথ্যা একটা ইতিহাস তৈরি করা। সামহাউ ওদের ধারণা যে এতে দেশের লোক মুজিব আর আম্মিলিককে খুব খুব ভালবাসা আর ভোট দিবে। এইসব মগজ ধোলাইয়ে যে একদম কাজ হয় না, তাও বলা যায় না। প্রায়ই আমরা দেখি শিক্ষিত জ্ঞানীগুনী ব্যক্তিরা পেটের ধান্দায় আম্মিলিকের দালাল/চামচা হয়ে গিয়ে বিভিন্ন ফিতাকাটা আর সম্বর্ধনা সভায় গিয়ে আম্মিলিককে ধন্য ধন্য করতে করতে ধন নিয়ে টানাটানি করে ফেলতেছে। এগুলা ঠিক না।

যা মনে হচ্ছে ২০১৬ হবে একটা পাওয়ারফুল বছর। অনেক সত্য উদ্ঘাটিত হবে। অনেক দুর্নীতি ধরা পড়ে বন্ধ হয়ে যাবে। আমাদের আম জনতার চিন্তাভাবনা আগের চেয়ে অনেক গভীর হয়ে, উদ্ভট আস্তিক-নাস্তিক জাতীয় অর্থহীন সাবজেক্ট বাদ দিয়ে যেসব জিনিষ ম্যাটার করে এগুলা নিয়ে লেখালেখি, আলোচনা শুরু হবে, আর সবচেয়ে জরুরি যেটা, যে একটা ভাল পরিবর্তন আসবে। মানুষজন আল্টিমেটলি বুঝতে শুরু করবে যে শুধু যে ইটি আছে, তাইই না, এরা আমাদের ক্ষতি আর উপকার দুইটাই করে যাচ্ছে। ড্রেকোরা আমাদের ক্ষতি করতেসে, আমাদেরকে মাইন্ড কন্ট্রোল করতেসে, আমরা ওদের খাদ্য। এগুলা বিশ্বাস করতে আপনাদের সময় লাগবে, কিন্তু একটা প্রসেস শুরু করাটা জরুরি যাতে আস্তে আস্তে আপনারা অন্ধকার থেকে আলোর দিকে আসা শুরু করেন। এই জন্যই সিয়াইএর একটা ফ্যাকশন একধরণের স্লো ডিস্ক্লোজার করে যাচ্ছে যার বদৌলতে আমরা অল্প অল্প করে জানতে পারতেসি ওদের বিভিন্ন টপ সিক্রেট প্রজেক্ট সম্পর্কে যেগুলাতে ওরা ইটিদের সাথে কাজ করে যাচ্ছে বা অতীতে করসে। আপনাদেরকে ট্রুম্যান আর আইসেনহাওয়ারের গ্রিয়াডা ট্রীটির কথা বলেছি। ঐ ট্রীটিটা ছিল জেটা রেটিকিউলি নামে একটা স্টার সিস্টেমের প্রাণীদের সাথে যারা মানুষকে অ্যাবডাক্ট করে বিভিন্ন গবেষণা করতো। ওরা সিয়াইএর কথা বেশি পাত্তা দিত না আর ট্রীটির শর্তগুলা অহরহ ভাঙত। ওদেরকে সাইজ করার মত টেকনোলজি বা অস্ত্র বানাতে সিয়াইএর প্রায় ৪০-৫০ বছর লাগসিল। এখন আমরা জেটাদের অ্যাবডাকশন থেকে মুক্ত। এরকম আরও অজস্র তথ্য আমাদের জানা দরকার যাতে বুঝতে পারি যে আসলে হচ্ছেটা কি। আস্তে আস্তে আপনারা এগুলা নিয়ে চিন্তা ভাবনা এবং জানা শুরু করতে পারেন।

 

the invention of the jewish people - shlomo sand (pdf)

Wednesday, January 6, 2016

stories of dhaka 5 (in bengali)

ঢাকা শহরের কেচ্ছা ৫



গত কয়েক বছরে পৃথিবীতে আমার মতই একদল লোকের অন্তরচক্ষু খুলে গেছে এবং আমাদের ওয়ার্ল্ডভিউ সম্পূর্ণ বদলে গেছে। আমরা বিভিন্ন ভাষায় এই ব্যাপারটা এক্সপ্রেস করি, যেমনঃ seeing through the matrix, lifting of the veil, quantum awakening, heightened awareness, paradigm shift, higher consciousness, spiritual awakening, ইত্যাদি। মজার ব্যাপার হচ্ছে যে যাদের এই অ্যাওয়েকেনিংটা হয়নি, তারা বিভিন্নভাবে আমাদের এই হাইয়ার কনশাস্নেসটাকে ভুল প্রমাণ করার চেষ্টা করতেছে, বা মনে করতেছে যে কোন না কোন জায়গায় আমাদের যুক্তি বা চিন্তায় গলদ আছে বলে আমরা কিছু অ্যাবসারড, অবিশ্বাস্য জিনিষ বিশ্বাস করে বসে আছি। কিন্তু আসলে ব্যাপারটা সেরকম না। আমাদের কারও মধ্যে কোন সন্দেহের অবকাশ নাই যে আমাদের অ্যাসেসমেন্ট ঠিক আছে কারণ আমরা অজস্র সংখ্যক মানুষ, যারা বিভিন্ন দেশের, কালচারের, এবং পেশার, সবাই তাদের বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল থেকে, ঠিক একই কনক্লুশনে পৌঁছাইছি। এবং শুধু তাইই না, প্রতিনিয়ত আমাদের এই নবগঠিত ধারণার পিছনে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন তথ্য আর এভিডেন্স। গতকালকে আমরা যতটুকু জানতাম, আজকে তার থেকে আর একটু বেশি জানতে পারছি। এইভাবে ক্রমাগত আমাদের অগ্রগতি হচ্ছে। এখানে সন্দেহ পোষণের কোন অবকাশ আসলে নেই। কিন্তু আমরা যে ঠিক, আর যারা ভাবছে আমরা ভুল, তারাই যে আসলে ভুল, এটার প্রমাণ ওদের কাছে দেওয়াটা খুবই কঠিন কারণ যারা মেট্রিক্সে খুব স্ট্রংলি লকড হয়ে আছে, তারা অনেকেই খুব বেশি হেড-সেন্ট্রিক। হেড আর হার্টের একটা ভাল ব্যালান্স না থাকলে বোধহয় মানুষের ডিসারনমেন্ট স্কিলটা ভাল কাজ করে না। তখন সত্যকে মিথ্যা, মিথ্যাকে সত্য মনে হয়।

আমরা যেসব সত্যকে উন্মোচন করেছি, তার মধ্যে অন্যতম হল ব্যাংকিং আর কর্পোরেট ফ্রড। আমরা বলছি যে ১৩টা রেপ্টিলিয়ান হাইব্রিড ফ্যামিলি পৃথিবীর সবচেয়ে বড়বড় প্রায় দেড়শ কর্পোরেশনের ইন্টারলকিং বোর্ড অফ ডিরেক্টরস হিসাবে পৃথিবীর প্রায় ৬০% সম্পদ কন্ট্রোল করে। এদের কারণেই আমরা এখনও মান্ধাতার আমলের গ্যাসোলিনে চলা গাড়ি বাস ট্রাকে চড়ি, কারণ পৃথিবীর প্রত্যেকটা বড়বড় তেল কোম্পানির মালিক এরা এবং ফ্রি এনার্জি টেকনোলজি ব্যবহার করলে ওদের তেলের ব্যবসা লাটে উঠবে বলে এরা কাউকে কোনভাবেই কোন উন্নত টেকনোলজি রিলিজ করতে দেয় না, যদিও ওরকম গাদা গাদা টেকনোলজি ওদের নিজেদের কাছেই লুকানো আছে এবং গোপনে ওরা নিজেরা সেগুলা ঠিকই ব্যবহার করে যাচ্ছে। শুধু আমাদের মগজ ধোলাই খাওয়া গাধাদের জন্য ঐ টেকনোলজি অফ লিমিটস। একবার যে এই সত্য জেনে ফেলসে, তার কিন্তু স্বস্তি নাই। না জানলে একটা কথা ছিল, কিন্তু জেনে শুনে কেউ ধরা খেতে রাজী হবে না, এটাই স্বাভাবিক। আর এই জন্যই, আমাদের দল ভারী করার জন্যই আমাদের নিরন্তন প্রচেষ্টা কিভাবে আরও বেশি লোককে মগজ ধোলাই থেকে বের করে আনা যায়। এই ব্যাপারে প্রতিদিনই আমাদের কাজ আগাচ্ছে ঠিকই, কিন্তু বিভিন্ন কারণে আমাদের কথার গুরুত্ব আর সত্যতা বুঝতে আপনাদের অনেকেরই খুব কষ্ট হচ্ছে। আর এটাই আমাদের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ। পরিবর্তন আমরা আনবই। এ ব্যাপারে আমাদের কোন সন্দেহ নাই।

মজার ব্যাপার হল, যদি আপনারা বিশ্বাস নাও করতে পারেন যে পৃথিবীতে ড্রেকো-রেপ্টিলিয়ান বা তাদের হাইব্রিড বলে কিছু আছে, তাতে কিন্তু ঐ কর্পোরেট-ব্যাংকিং ফ্রডটা নালিফাই হয়ে যায় না। ওটা কিন্তু আমরা ঠিকই চোখের সামনে দেখতে পাচ্ছি। কিন্তু ব্রেইনওয়াশের একটা মজা হল যে এটা আসলে কোন যুক্তি মানে না। আমাদের প্রত্যেকটা বক্তব্যের পিছনে আছে অসংখ্য মানুষের রিসার্চ আর পরিশ্রম। কিন্তু যখনই আমরা সংক্ষেপে ব্যাপারটা বুঝাতে যাচ্ছি, তখনই আপাতদৃষ্টিতে আপনাদের কাছে মনে হচ্ছে এ তো অসম্ভব ব্যাপার। এ রকম মনে হওয়াটাই স্বাভাবিক তা আমরা জানি, এবং সে জন্যই বারবার বলছি আপনারা নিজেরা রিসার্চ করে দেখেন। কিন্তু সেখানেও সমস্যা, কারও সময় নাই, কেউ ইংলিশে কাঁচা, কারও আগ্রহ বা ইচ্ছা কোনটাই নাই, কেউ আগে থেকেই জানে যে এগুলা সব ভুয়া। আবার আমরা যে সংক্ষেপে একটা সারমর্ম করে বুঝাবো, সেটাও আপনাদের কাছে অবাস্তব মনে হয়। তাহলে উপায়টা কি? এই প্রশ্নের উত্তর আমরা কেউ কেউ নিরন্তর খুঁজি। এই উত্তর খুঁজে পাওয়াটা খুব জরুরি।

এখন ধরেন, আপনি আমাদের সব কথা সত্য হিসাবে মেনে নিলেন। এখন কি হবে? কি হবে জানেন? ঘোড়ার ডিম। কোন লাভই হবে না, কারণ এরকম সুপারফিশিয়াল, শ্যালো আন্ডারস্ট্যান্ডিঙের কোন মানে নাই আসলে, যতক্ষণ পর্যন্ত আপনার ভিতরে একটা গভীর উপলব্ধি না আসবে যে আমাদের কথাগুলা প্রচণ্ড রকমের গুরুত্বপূর্ণ। আর এই উপলব্ধিটা যার আসবে, তাকে আর কিছু বুঝানোর নাই, কারণ সেই ব্যক্তি তখন নিজেই সেচ্ছায় নিয়োজিত হয়ে পড়বে আরও জানার জন্য, যাতে তার বোঝাটা স্পষ্ট আর গভীর হয়। যাতে সে অন্যদেরও পরিস্কারভাবে ব্যাপারগুলা বুঝায়ে বলতে পারে, যাতে আরও বেশি সংখ্যক লোক জেগে ওঠে।

যখন আপনি সন্দেহাতীতভাবে জানতে পারবেন যে আমাদের পায়ের তলায়, পৃথিবীর পেটের ভিতরে বাস করে সুপার-অ্যাডভান্সড মানুষ এবং অন্যান্য প্রজাতি, জানতে পারবেন যে পৃথিবীর মানুষ শতশত বছর ধরে চাঁদে, মঙ্গল গ্রহে, অন্যান্য গ্যালাক্সি বা স্টার সিস্টেমে, টাইম ট্র্যাভেল করে অতীতে বা ভবিষ্যতে যাচ্ছে, তখনও কি আপনার ইচ্ছা করবে ফেসবুকে সেলফি তুলে আর আস্তিক-নাস্তিক আলোচনা করে সময় কাটাতে? নাকি আপনি চাইবেন ঐ সব অ্যাডভান্সড টেকনোলজির স্বাদ পেতে, বিশেষত যেহেতু আপনার দেয়া ট্যাক্সের টাকা দিয়েই ঐ সমস্ত গোপন প্রজেক্টগুলার ফান্ডিং হচ্ছে? আপনার কি ইচ্ছা করবে না বিনা ওষুধে বা অস্ত্রোপচারে যদি সব অসুখ ভাল হয়ে যায় সেই টেকনোলজি ব্যবহার করতে? আপনার বাসা অফিস বা ফ্যাক্টরি যদি বিনা বিদ্যুৎ বিলে চলে, তাহলে কি জিনিষপত্রের দাম কমে যাবে? যদি গাড়ি চালাতে কোন তেল বা ব্যাটারি না লাগে, তাহলে কি ডিস্ট্রিবিউশনের খরচ একটু কমবে? এতে কি আমাদের ইকনমিতে কোন সুবিধা হবে? প্রতিদিন ১২ ঘণ্টা যদি আমাদের অফিসে বসে কলম পিষতে না হয় জীবিকার তাড়নায়, তাহলে কি আমাদের জীবনের সার্থকতা কমে যাবে, নাকি সামান্য বাড়লেও বাড়তে পারে?

অর্থাৎ, আমাদের বক্তব্য হচ্ছে, আমরা সবাই যদি আমাদের ভুল ধারনা ভেঙ্গে বের হয়ে আসি, তাহলে আমাদের জীবনের কিছু উন্নতি হবে তা না, উন্নতির লেভেলটা হবে অবিশ্বাস্য এবং অসাধারন। তার কারণ হল, অজস্র হাই টেকনোলজি আমাদের কাছে থেকে লুকায়ে রাখা হচ্ছে যেগুলা রিলিজ করতে হলে আমাদের সবার এক হয়ে এক দাবী জানাতে হবে। এটা শুধুমাত্র আমাদের এই জাগরণ বা আন্দোলনটাকে শক্তিশালী করার অপেক্ষায় আছে। যেইমাত্র আমরা একটা সংখ্যার থ্রেশহোল্ড পার হব, যথেষ্ট সংখ্যক মানুষ যখন জেগে উঠবে, সেইদিনই এই মেট্রিক্সের তাসের ঘর ভেঙ্গে পড়বে। ব্যাপারটা এতটাই সহজ। কিন্তু ঐ জায়গাটায় পৌঁছাতে চাইলে, আপনাদেরকে ঠিক আমার মতই অন্যদেরকে আলোকিত করার কাজটা করতে হবে। কিন্তু তার আগে, আপনার নিজের যথেষ্ট পরিমাণ আলোকিত হওয়াটা বাঞ্ছনীয়।

আপনি যদি আমার এতক্ষনের আলাপে কিছুটা হলেও কনভিন্সড হয়ে থাকেন, তাহলে আপনার কি করণীয়? প্রথমে আমাদেরকে জানান আপনার রিয়্যাকশন। আপনার মতামত দেন। আমাদের শেয়ার করা পোস্টগুলা ভালমত খেয়াল করা শুরু করেন। আমাদের সাথে দেখা করে আলাপ করেন। আমাদের কাছে সাজেশন চাইতে পারেন। কোন বিষয়ে আপনি বেশি আগ্রহ বোধ করছেন সেটা বের করেন। তারপর ঐ বিষয়টার উপরে পড়াশোনা করেন। কখনও জোর করে কোন বোরিং জিনিষ পড়তে যাবেন না। ওতে লাভের চেয়ে ক্ষতি বেশি হয়। আর একটা বিষয় বোঝার জন্য একাধিক রাস্তা থাকে সাধারণত। কাজেই আপনি যেটাতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন, সেই পথে যান। মনে রাখবেন, যে জানতে চায়, তাকে কেউ ঠেকায়ে রাখতে পারে না। আপনার ইচ্ছা যদি থাকে, উপায় বের হবেই। আপনি বুঝতেই পারবেন না, এত কঠিন কোন বিষয় নিয়ে আসলে আমরা আলাপ করছি না। কাজেই কনফিডেন্স নিয়ে সামনে আগান। আমরা আছি আপনাদেরকে সাহায্য করার জন্য। ধন্যবাদ।